কাশিয়ানীর হাতিয়ারা ইউনিয়নে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী কমলেশ ঘোষ এলাকায় আতঙ্ক ছড়াচ্ছে

0
215
উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক কমলেশ ঘোষ হাতিয়ারা ইউনিয়ন নির্বাচনে আনারস প্রতিক নিয়ে প্রার্থী হয়েছে।

কাশিয়ানীর হাতিয়ারা ইউনিয়নে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী কমলেশ ঘোষ এলাকায় আতঙ্ক ছড়াচ্ছে
কাশিয়ানী(গোপালগঞ্জ) উপজেলা প্রতিনিধি:
গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলা হাতিয়ারা ইউনিয়ন নির্বাচন আগামী ১১ই নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। তৃতীয় ধাপের এ নির্বাচনে কাশিয়ানী উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক কমলেশ ঘোষ ভোটারদের মাঝে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। ইতিমধ্যে ভোট না দিলে এলা থেকে উচ্ছেদের হুমকি দেওয়ায় তার বিরুদ্ধে থানায় একা ধিক জিডি করেছেন কয়য়েকজন।
কমলেশ ঘোষ রাহুথড় গ্রামের বাসিন্দা। হাতিয়ারা ইউনিয়ন তিনি আনারস প্রতিক নিয়ে এ নির্বাচনে অংশ নিয়েছে। এবার এই উপজেলায় আওয়ামী লীগ দলের জন্য উম্মক্ত রাখায় এখানে নৌকা প্রতিক বরাদ্দ দেওয়া হয়নি। গতবার নৌকা নিয়ে বিজয়ী জনপ্রিয় সফল চেয়ারম্যান দেবদুলাল বিশ^াস চশমা প্রতিক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। তিনি বর্তমানে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি হিসাবে দায়িত পালন করছে। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি এলাকায় ব্যাপক উন্নয়নের মাধ্যমে সাধারন মানুষে মনে আস্থা ও ভালোবাসা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন।
চেয়ারম্যানের উন্নয়নের ধারাকে ব্যাহত করতে এবার বিএনপি জামাতের সমর্থনে নানা বির্তকিত বিএনপির নেতা কমলেশ ঘোষ চেয়ারম্যানের প্রার্থী হয়েছে।
জানা গেছে, স্থানীয়ভাবে প্রভাব বিস্তার করে সাধারন মানুষকে ভয় ভীতি দেখাচ্ছে। অনেক দিন ধরেই কমলেশ ঘোষ মাদক, সন্ত্রস ও নানা অনিয়মের সাথে জড়িত। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন থানায় হত্যা, মাদক পাচার ও সন্ত্রসী কার্যকলাপের কারনে একাধিক মামলা হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য, পাশের গ্রামের একটি হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে মুকশিদপুর থানায় ২০১১ সালে তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করা হয়। মাদক সেবন ও বিক্রির দায় মাদকসহ গ্রেপ্তার হলে তার বিরুদ্ধে লোহাগাড়া থানায় ২০১৩ সালে মামলা হয়, যার নম্বও ৩৪/২০১৩। এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করার কারনে ২০১৬ সালে কাশিয়ানী থানায় মামলা হয়, মামলা নম্বও নং ৪।
গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন কমলেশ ঘোষের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রর্থীর নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও জাতীর পিতার ছবি ভাংচুরের অপরাধে একটি মামলা করা হয়। আবার মাদক পাচারের সময় আটক হলে ফরিদপুর জেলার আলফাডাঙ্গা থানায় ২০১৭ সালে তার বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা হয় যার নম্বর ২/৭৪। ২০২০ সালে কাশিয়ানী থানায় তার বিরুদ্ধে নাশকতা সৃষ্টির অভিযোগে মামলা হয়, যার নম্ব ৫/১৪৬। এলাকায় কমলেশ ঘোষের সন্ত্রাসী বাহিনী কেন্দ্র দখলসহ নানা অপকর্মের কথা বলে প্রকাসশে ভোটারদের শাসিয়ে বেড়াচ্ছে।
বর্তমানে ইউনিয়ন নির্বাচন ৬নং ওয়ার্ডের গীতানঞ্জলী সংঘ, ৭নং ওয়ার্ডের অমৃতময়ী সরকারী প্রাথমীক বিদ্যালয়, ৮নং ওয়ার্ডের রাহুথড় সরকারী প্রাথমীক বিদ্যালয় ও ৯নং ওয়ার্ডের পাথরগ্রাম কেন্দ্র গুলো ঝুকি পূর্ণ। এসব কেন্দ্রে কমলেশ ঘোষ একক আধিপাত্য বিস্তারের জন্য সাধারন ভোটারদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে দিচ্ছে।
হাতিয়ারা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারন সম্পাদক মো. বাদশা মোল্যা বলেন, এলাকাটিতে শুধু হিন্দু সম্প্রদয় এর বসবাস। এখানে সবাই শন্তি ও নিরিবিলি বসবাস করতে চায়। কিন্ত এবারে আমাদের ইউনিয়নের ভোট নিয়ে সব খানে আতঙ্ক বিরাজ করছে। ভোট কেন্দ্রের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরা না গেলে ঝুকি নিয়ে কেউ ভোট দিতে যাবেনা। তিনি বলেন, ইউনিয়নের আলোচিত ভোট কেন্দ্র গুলোতে অধিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। তিনি আরোর বলেন, টাকার জন্য উপজেলা লেবেলের কিছু নামধারী আওয়ামী লীগের নেতারা কমলেশ ঘোষের হয়ে কাজ করছে গোপনে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here